বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন নিয়ােগ বিজ্ঞপ্তি


 

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনে নিন্মবর্ণিত স্থায়ী শূণ্য পদে সরাসরি নিয়ােগের জন্য পদের পার্শ্বে বর্ণিত শিক্ষাগত যােগ্যতা ও অভিজ্ঞতা সম্পন্ন বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিকদের নিকট হতে দরখাস্ত আহবান করা যাচ্ছে


প্রতিষ্ঠানের নাম: বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন সংক্ষিপ্ত নাম: বিপিসি আবেদন শুরুর তারিখ: ২৭ জানুয়ারী , ২০২২ আবেদনের শেষ তারিখ: ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ আবেদনের লিংক: http://bpc.teletalk.com.bd




বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন বাংলাদেশ সরকারের তেল আমদানি ও বাজারজাত করার জন্য নিয়জিত একটি সংস্থা। বর্তমানে (২০২১) সালে এই সংস্থার চেয়ারম্যান হিসেবে আছেন এবিএম আজাদ (এনডিসি) বাংলাদেশে অপরিশোধিত তেল, জ্বালানী, লুব্রিকেটিং তেল এবং পেট্রোলিয়াম পণ্য আমদানি ও বিতরণের জন্য ১৯৭৬ সালে রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ (নং-৮৮, ১৩/ ১১/১৯৭৬) বলে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এটি বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় দ্বারা পরিচালিত হয়।২০০৯ সালের হিসাবে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের বার্ষিক আমদানির মাত্রা ছিল ২৯০ লাখ ব্যারেল। ২০১৭ সালের অর্থনৈতিক সমীক্ষায় বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনকে সবচেয়ে লাভজনক রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান হিসাবে দেখা যায়। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে এটি ৯০ বিলিয়ন টাকার বেশি আয় করে। ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ সালে, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন একটি নতুন সূত্র ব্যবহার করে তেলের দাম নির্ধারণের জন্য সরকারের কাছে অনুমতি চেয়েছিল যা আন্তর্জাতিক বাজারে দামের সাথে স্বয়ংক্রিয়ভাবে দাম সমন্বয় করবে। কোম্পানির আশঙ্কা ছিল দেশীয় বাজারে কম দাম কোম্পানির জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে এবং তা ভারতের সঙ্গে সীমান্ত এলাকায় তেল চোরাচালানকে উৎসাহিত করতে পারে। ২০২০ সালে, বাংলাদেশ সরকার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানগুলোকে জাতীয় কোষাগারে উদ্বৃত্ত বা নিষ্ক্রিয় তহবিল জমা দেওয়ার জন্য আইন পরিবর্তন করে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন ২০১৪-১৫ থেকে ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকা কর-মূসক হিসেবে জাতীয় কোষাগারে টাকা জমা দেয়।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

নবীনতর পূর্বতন